ওয়াইফাই-পাসওয়ার্ড-হ্যাক

ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড হ্যাক করার দুর্দান্ত উপায়

ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড হ্যাক করার উপায় কি? এই প্রশ্নটি অনেকেরই মাথায় ঘুরপাক খায়। কিন্তু WiFi-হ্যাকিং করা কতটা সহজ ও মানুষ কিভাবে ওয়াইফাই হ্যাক করে থাকে সেটা আজ জানব। মোবাইল ফোন দিয়ে ওয়াইফাই হ্যাক করার অনেক ধরণের সফটওয়্যার পাবেন যেগুলো কিছু কাজ করে আর বাকিগুলো ইতিহাস। কম্পিউটার দিয়ে যদি WiFi Hack-করে থাকেন তাহলে আপনি খুব সহজেই রুট ঝামেলা ছাড়াই পাসওয়ার্ড বের করতে পারবেন।

মোবাইল দিয়েও ওয়াইফাই হ্যাক পারবেন কিন্তু এর জন্য আপনাকে আপডেট মডেল মোবাইল লাগবে। আজকে আমি WiFi Hacking-নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। জানি না আপনি কতটা উপকৃত হবেন কিন্তু আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করবো আপনাদের বুঝানোর জন্য।

অনলাইনে আমি অনেক ব্লগ দেখেছি যেগুলোর মধ্যে ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড হ্যাক নিয়ে অনেক ভাবে আলোচনা করা হয়েছে। অনেকে বলেছে “ওয়াইফাই হ্যাকিং করা সম্ভব না” আবার অনেকে বলছে “খুব সহজেই ওয়াইফাই হ্যাক করা যায়” তাই এখন আমরা জানব আসলেই এই কথাগুলো সত্যি কি না।

আমরা জানি ওয়াইফাই ব্যবহার করার জন্য একটি রাউটারের দরকার হয়। এই রাউটারই পারে আপনার ওয়াইফাই হ্যাক করার পথ সহজ করে দিতে। আপনি হয়তো ভাবছেন রাউটার আবার কিভাবে এই কাজ করবে। এর জন্য চলুন আমরা রাউটার সম্পর্কে একটু জেনে নেই।

রাউটার কি?

Router-হচ্ছে একটি ইলেকট্রনিক মেশিন বা যন্ত্র যা সফটওয়্যারের সমন্বয় তৈরি করা হয়েছে। অর্থাৎ এই মেশিনটির মধ্যে একটি সফটওয়্যার প্রবেশ করানু হয়েছে এবং সেটার মাধ্যমে সম্পূর্ণ রাউটারকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এই রাউটার আপনার ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক তৈরি করে দিবে এবং ডাটা প্যাকেট নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌছে দিবে।

রাউটার-কি

রাউটার অনেক কোম্পানির রয়েছে যেমন- Tenda, TP-Link, D-Link-ইত্যাদি। এখন কথা হচ্ছে সব রাউটারের মধ্যে একই ভাবে সফটওয়্যার নিয়ন্ত্রণ করার সিস্টেম নাই। যার কারণে কিছু রাউটারের সিকিউরিটি অনেক দূর্বল থাকে এর ফলে অনেক ভাবেই এই দূর্বল রাউটারগুলোর মধ্যে বিনা অনুমতিতে প্রবেশ করা যায় অর্থাৎ যেটাকে মানুষ হ্যাকিং বলে। অন্যদিকে WiFi-সম্পর্কে অনেকেই জানে না, যদি না জেনে থাকেন তাহলে জেনে নিন।

ওয়াইফাই কি?

WiFi-এর পূর্ণরুপ হচ্ছে Wireless Fidelity-যা লোকাল এরিয়া নেটওয়ার্ক তৈরি করে এবং কম্পিউটারের মধ্যে ইন্টারনেট সংযুগ সৃষ্টি করে। ওয়াইফাই তিন ধরণের হয়ে থাকে ১। হটস্পট ওয়াইফাই ২। আইইইই ৮০২.১১ ৩। লাই-ফাই।

ওয়াফাই থেকে ইন্টারনেট কানেকশন পাওয়ার জন্য একটি যন্ত্রের প্রয়োজন হয় যার নাম রাউটার। এই রাউটার দিয়ে আপনি একটি লোকাল এড়িয়া নেটওয়ার্ক তৈরি করতে পারবেন এবং খুব সহজেই তারহীন ইন্টারনেট কানেকশন করতে পারবেন।

wifi-হ্যাকিং-সফটওয়্যার

এখন আপনি হয়তো বুঝতে পারছেন অন্যের ওয়াইফাই ব্যবহার করতে হলে প্রথমে আপনাকে রাউটারে প্রবেশ করতে হবে অর্থাৎ রাউটার হ্যাক করতে হবে। আমি আগেই বলেছি রাউটার যদি দূর্বল সিকিউরিটির হয়ে থাকে তাহলে আপনি বিভিন্ন সফটওয়্যারের মাধ্যমে হ্যাকিং করতে পারবেন। আর যদি রাউটার সম্পূর্ণ হার্ড সিকিউর করা থাকে তাহলে আপনাকে অন্যব্যবস্থা করতে হবে।

হ্যাকিং কি?

হ্যাকিং কী আর হ্যাকিং মানুষ কেন করে সেটা জানা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। হ্যাকিং হচ্ছে কোনো ব্যক্তির অনুমতি ছাড়া তার কম্পিউটারে, মোবাইলে বা অন্য যেকোনো একাউন্টে প্রবেশ করে তার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংগ্রহ করা ও তার সমস্ত ডাটা বা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মুছেফেলা ইত্যাদি।

ওয়াইফাই-পাসওয়ার্ড-বের-করার-নিয়ম

এটাকে একভাবে চুরিও বলা যায় কারণ আপনি যদি কারো অনুমতি ছাড়া কোনো টাকা পয়সা অন্যকিছু কেরে নিয়ে চলে যান তাহলে আপনাকে নিশ্চয় চুর বা ডাকাত বলবে। এই কথাটা আসলে আপনাকে বলা হয় নাই, এটা একটা উদাহরণ দেখানো হয়েছে ভুল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।

মানুষ কেন ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড হ্যাক করে?

ওয়াইফাই হ্যাক করার পেছনে অনেক কারণ থাকতে পারে তার মধ্য থেকে আমি কয়েকটি বলে দিচ্ছি। অনেকের ওয়াইফাই লাইন নেওয়ার মতো সামর্থ নেই যার কারণে আশেপাশে কারো WiFi-থাকলে সেই দিকে নজর দেয়। আবার অনেকে আছে শখের বিষয় ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড হ্যাক করতে চায়।

অন্যদিকে কেউ আছে যারা নিজের খুব প্রয়োজনে ওয়াইফাই হ্যাকিং করে নিজের সামর্থ না থাকার কারণে। এখন আসি এগুলো মানুষ কেন করে- কিছু মানুষ আছে ওয়াইফাই লাইন নেয় কিন্তু আশেপাশের বন্ধু-বান্ধব বা প্রতিবেশী কেউ পাসওয়ার্ড চাইলে দিতে চায় না। ফলে তার মনে একটা হিংসা কাজ করে এবং তার অজান্তেই WiFi-হ্যাকিং করার চেষ্টা চালায়।

ওয়াইফাই-হ্যাক

কিন্তু আমি একটা কথা বলতে চাই এই ভাবে অন্যের জিনিস না নেওয়াই ভালো যেহেতু সে আপনাকে পাসওয়ার্ড দিবে তাহলে তাকে আর বিরক্ত করে লাভ নেই। যদি তার ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক হ্যাক করতেই চান তাহলে আমার দেওয়া নিচের স্টেপগুলো ফলো করুন। তার আগে আমি একটা কথা বলে নেই, এইভাবে ওয়াইফাই হ্যাকিং করে কারো সাথে কোনো প্রতারণা করলে এর জন্য আমি দায়ী নয়।

ওয়াইফাই হ্যাক করার নিয়ম

আমি আগেই বলে নেই ওয়াইফাই হ্যাকিং করার জন্য রাউটারের পিনকোড সংগ্রহ করতে হবে। ইউটিউবে বা ইন্টারনেটে ওয়াইফাই হ্যাকিং নিয়ে যত ভিডিও বা আর্টিকেল পাবলিশ করা হয় সবগুলোর মধ্যে আপনি এই পিনকোডের কথাটি পাবেন।

মোবাইলের জন্য গুগল প্লে স্টোরে অনেক ওয়াইফাই হ্যাক করার সফটওয়্যার পাবেন যেগুলোর প্রত্যেকটির মধ্যে পিনকোড সেট করা থাকে বা কাস্টম পিনকোড যুক্ত করার সিস্টেম থাকে। এই পিনকোড যদি আপনার টার্গেট করা ওয়াইফাই রাউটারের সাথে মিলে যায় তাহলে আপনি হ্যাকিং করে সফল হতে পারবেন।

wifi-hack-করার-সহজ-উপায়

এখন আপনি হয়তো ভাবছেন পিনকোড কি এটা কোথায় পাওয়া যায়? প্রতিটি রাউটারের মধ্যে ৮ ডিজিটের পিনকোড একটি দেওয়া থাকে। আপনি যে ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক হ্যাক করতে চাচ্ছেন সেই রাউটারের পিনকোড সংগ্রহ করতে হবে। আর যদি সেই রাউটারের পিনকোড সহজ সরল হয়ে থাকে তাহলে বিভিন্ন সফটওয়্যারের মধ্যে যে পিনকোডগুলো সেটা করা থাকে সেটা দিয়ে স্ক্যান করলেই আটোমেটিক কানেক্ট হয়ে যাবে। WiFi-হ্যাকিং করার কয়েকটি সফটওয়্যার নিয়ে আমি একটি আর্টিকেল পাবলিশ করেছি চাইলে এখানে ক্লিক করে পড়ে আসতে পারেন।

রাউটারের পিনকোড সংগ্রহ করার উপায়

প্রতিটি রাউটারের পেছনে ৮ ডিজিটের একটি নাম্বার দেখতে পাবেন এবং সেটাই হচ্ছে পিনকোড। অন্যদিকে আপনি যদি তার রাউটারের পিনকোড সংগ্রহ করতে না পারেন তাহলে আপনি তার মোবাইল বা কম্পিউটার নিয়ে পিনকোড সংগ্রহ করতে পারবেন। এর জন্য একটি কথা মনে রাখবেন প্রতিটি রাউটারের Username-ও-Password-দেওয়া থাকে admin-অর্থাৎ আপনি দুই জায়গায়ই admin-লেখাটি বসাবেন।

ওয়াইফাই-রাউটার

ভিক্টিমের রাউটার যদি Tp-Link-হয়ে থাকে তাহলে তার মোবাইল নিয়ে যেকোনো একটি ব্রাউজারে গিয়ে 192.168.o.1-এই এড্রেসে বা https://emulator.tp-link.com/TL-WR720N_V2/index.htm এই লিংকে প্রবেশ করবেন এবং এক্ষেত্রে ভিন্ন মডেলের রাউটারের জন্য ভিন্ন ভিন্ন এড্রেস থাকতে পারে এর এটা সুধু Tp-Link-এর জন্য। ভিক্টিমের রাউটার যদি অন্য কোম্পানির হয়ে থাকে তাহলে এখানে ক্লিক করে যেকোনো রাউটারের আইপি এড্রেস জেনে নিতে পারেন।

এখন আপনি যদি রাউটারে প্রবেশ করেন তাহলে একটু ঘাটাঘাটি করলে ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড পেয়ে যাবেন। এবং এর সাথে রাউটারের পিনকোডটি সংগ্রহ করে রাখবেন কারণ পরবর্তি কোনো সময় যদি ভিক্টিম রাউটারের পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করে তাহলে পিনকোড দিয়ে আপনি আবার পাসওয়ার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন।

রাউটারে প্রবেশ না করতে পারলে কি হবে?

যদি কোনো সময় আপনার ভিক্টিম রাউটারের Username-ও-Password-পরিবর্তন করে ফেলে তাহলে কিন্তু আপনি আর পাসওয়ার্ড দেখতে পারবেন না, শুধু পিনকোড দিয়ে কানেক্ট করতে পারবেন কিন্তু পাসওয়ার্ড দেখা যাবে না। এখন আপনি যদি পাসওয়ার্ড দেখতে চান তাহলে আপনার মোবাইল রুট করতে হবে।

আগেই বলে রাখি মোবাইল যদি রুট করেন তাহলে আপনার মোবাইলের সময়কাল অনেক কমে যাবে অর্থাৎ যেকোনো সময় নষ্ট হয়ে যেতে পারে। আর যদি মোবাইল কোম্পানি আপনার মোবাইল রুট করার অনুমতি দিয়ে থাকে তাহলে করতে পারেন কোনো সমস্যা নেই।

রুট বিষয়টা কি এটা নিয়ে আমি এখন কোনো আলোচনা করতে চাচ্ছি না কারণ এর জন্য আর্টিকেলটি অনেক বড় হয়ে যাবে। কিন্তু বিভিন্ন হ্যাকিং কাজগুলো করার জন্য যে অ্যাপসগুলো তৈরি করা হয়েছে সেগুলো সম্পূর্ণ ভাবে কাজ করার জন্য আপনার মোবাইল ফোন রুট পারমিশন চাইবে। আমার মতে সামান্য ওয়াইফাই এর জন্য আপনার মূল্যবান মোবাইল ফোনটি রুট না করাই ভালো।

অন্যদিকে আপনি যদি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ব্যবহার করে থাকেন তাহলে কোনো প্রকার রুটিং ঝামেলা ছাড়াই খুব সহজে ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড বের করতে পারবেন। কম্পিউটার দিয়ে যদি ওয়াইফাই পাসওয়ার্ড হ্যাক করতে চান তাহলে আমার এই আর্টিকেলটি পড়ে আসতে পারেন। আসলে যেকোনো মানুষ চাইলেই ওয়াইফাই হ্যাক করতে পারবে না, যারা অরিজিনাল হ্যাকার তারাই এইসব হ্যাকিং কাজগুলো বিভিন্ন উপায় করে থাকে।

ওয়াইফাই হ্যাক নিয়ে আরো কিছু কথা,

আপনি হয়তো কোনো বাস বা দোকানে ফ্রি ওয়াইফাই দেখে থাকেন এবং সেগুলো হয়তো ব্যবহারও করে থাকেন। অন্যদিকে আপনি বিভিন্ন পাবলিক প্লেসে গেলেও ফ্রি ওয়াইফাই দেখতে পারবেন।

কিন্তু আপনি কি জানেন এই ফ্রি ওয়াইফাই কতটা সাঙ্ঘাতিক হতে পারে আপনার জন্য? বিভিন্ন হ্যাকার বা প্রতারক এইসব ফ্রি ওয়াইফাই দিয়ে মানুষের মোবাইলের সকল তথ্য সংগ্রহ করে ব্ল্যাক মেইল করে থাকে।

আপনি যখন কোনো ফ্রি ওয়াইফাই নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত হন তখন তারা চাইলেই যেকোনো ভাবে আপনার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংগ্রহ করে রাখতে পারে তাই ফ্রি ওয়াইফাই যখন ব্যবহার করবেন একটু বোঝে শোনে করবেন।

আমি সব ফ্রি ওয়াইফাই নেটওয়ার্কের কথা বলছি না, আপনাকে সতর্ক থাকার জন্য কথাটি বলা হয়েছে। কারণ কিছু বাস বা রেস্টুরেন্ট ফ্রি ওয়াইফাই দিয়ে থাকে কাস্টমার পাওয়ার জন্য। ওয়াইফাই হ্যাক নিয়ে আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থাকে আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন। আজ এ পর্যন্তই ভালো থাকবেন ধন্যবাদ!

Leave a Comment