ইমেইল-একাউন্ট-তৈরী

যেকোনো ইমেইল একাউন্ট তৈরী করুন সম্পূর্ণ ফ্রি

অনলাইনে বিভিন্ন তথ্য বা চিঠি আদান-প্রদানের জন্য মানুষ ইমেইল একাউন্ট তৈরী করে থাকে। জি-মেইল অ্যাকাউন্ট তৈরী করার মাধ্যমে আপনি এক স্থান থেকে অন্য স্থানে মেইল পাঠাতে পারবেন। ইন্টারনেটের মাধ্যমে চিঠি আদান-প্রদানের অন্য একটি নাম হচ্ছে ইমেইল। আর ই-মেইল এর পূর্ণরূপ হচ্ছে ইলেকট্রনিক মেইল। এই সার্ভিসটি চালু করেছে গুগল যা ব্যবহার করে মানুষ খুব সহজেই যেকোনো তথ্য ইন্টারনেটের মাধ্যমে শেয়ার করতে পারছে।

বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো ইমেইলর মাধ্যমে আদান-প্রদান করা হয়। বর্তমানে বিভিন্ন ভাবে তথ্য শেয়ার করা যায় যেমনঃ ফেসবুক, টুইটার ও হোয়াটস্যাপ।

গুগলের জিমেইল পণ্যটি দিয়ে মানুষ বিভিন্ন কাজ করতে পারে যেমনঃ ইউটিউব অ্যাকাউন্ট তৈরী করা যায়, ফেসবুক, গুগল ড্রাইভ ও অন্যান্য। তাই জিমেইল মানুষের কাছে অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

এছাড়া গুগলের কিছু সার্ভিস রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করতে হলে জিমেইল একাউন্ট তৈরী করতে হবে যেমনঃ গুগল প্লে স্টোর।

গুগল প্লে স্টোর থেকে এপস ডাউনলোড করার জন্য আপনাকে জিমেইল একাউন্ট তৈরী করতে হবে।

আরো পড়ুন-

আজকে মূলত আমরা জানব কিভাবে জিমেইল একাউন্ট তৈরী করা যায়। এবং জিমেইল একাউন্ট তৈরী করে কিভাবে এর সঠিক ব্যবহার করা যায় সেটার সম্পর্কেও জানব। গুগলের পণ্য জিমেইল তৈরী করা হয় ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল।

এরপর থেকে মানুষ কাগজে হাতে না লিখে ইন্টারনেটের মাধ্যমে চিঠি আদান-প্রদান করা শুরু করে। কিন্তু এখনো কাগজের মধ্যে হাতে লিখে চিঠি আদান-প্রদানের ব্যবহার রয়েছে।

জিমেইল একাউন্ট তৈরী করার জন্য গুগল কোনো অর্থ নেয় না বরং গ্রাহকদের সেবা দেওয়ার জন্য আরো নানা ধরণের সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার চেষ্টা করছে।

জিমেইলের মধ্যে স্প্যাম নামক একটি ফিল্টার রয়েছে যেটার মাধ্যমে স্প্যাম মেইলগুলোকে শনাক্ত করে সেখানে জমা রাখা হয়।

কোনো ফেইক মেইল, হ্যাকারদের মেইল বা ভাইরাসযুক্ত মেইল থাকলে সেটাকে গুগল স্প্যাম হিসাবে ধরে নেয়।

ইন্টারনেটে ইমেইল একাউন্ট তৈরী করার জন্য অনেক রকমের উপায় আছে। আপনি চাইলে ইয়াহু দিয়ে একটি ইমেইল একাউন্ট তৈরী করে ফেলতে পারেন।

কিন্তু সবচেয়ে ভালো হবে আপনি যদি জিমেইল দিয়ে ইমেইল একাউন্ট তৈরী করতে পারেন কারণ জিমেইল দিয়ে বিভিন্ন জনপ্রিয় সার্ভিসগুলোর সেবা নেওয়া যায়।

ইমেইল একাউন্ট তৈরী করার জন্য কি কি লাগবে?

প্রথমেই একটি কথা বলে নেই অনলাইনে কোনো কাজ করতে হলে ইন্টারনেট কানেকশনের কোনো ভূমিকা নেই, সুতরাং ইন্টারনেট সংযুগতো লাগবেই।

চাইলে আপনি মোবাইল, ল্যাপটপ বা কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারেন জিমেইল একাউন্ট তৈরী করার জন্য।

এছাড়া ফোন নাম্বার, নাম, বার্থডে ও নিজের মনে রাখার মতো একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড লাগবে। মনে রাখবেন কোনো ভূল তথ্য দিবেন না কারণ একটি জিমেইল একাউন্ট দিয়ে আপনি বিভিন্ন ধরণের কাজ করতে পারবেন।

জিমেইল একাউন্ট তৈরী করার নিয়ম

আপনার মোবাইলের বা কম্পিউটারের ইন্টারনেট সংযুগ চালু করে যেকোনো একটি ব্রাউজারে ভিজিট করুন। আপনি যদি মোবাইলে জিমেইল একাউন্ট তৈরী করতে চান তাহলে গুগল প্লে স্টোরে ভিজিট করতে পারেন অথবা কোনো ব্রাউজারে।

এখন ব্রাউজারের সার্চবারে জিমেইল ডটকম লিখে সার্চ করলে সরাসরি আপনাকে জিমেইল একাউন্ট তৈরী করার স্থানে নিয়ে যাওয়া হবে।

Create Account-এ ক্লিক করলে আপনাকে দুটি অপশন দেখানো হবে For Myself ও To Manage My Business।

এর মানে হচ্ছে আপনি চাইলে নিজের জন্য একটি জিমেইল একাউন্ট তৈরি করতে পারেন অথবা চাইলে বিজনেসের জন্য তৈরি করতে পারেন। এখান থেকে আপনি যেকোনো একটিতে ক্লিক করবেন।

ক্লিক করার পর আপনার কাছে নতুন একটি পেজ আসবে এবং সেখানে বিভিন্ন অপশন আসবে যেগুলো আপনার ফিল আপ করতে হবে। ফর্মটি ফিল আপ করার পর Next-এ ক্লিক করবেন।

নতুন-ইমেইল-একাউন্ট

এরপর আপনার সামনে আরো একটি এন্টার পেজ শো করবে। এখানেও আপনাকে বিভিন্ন অপশন দেওয়া হবে এবং সেগুলো নির্ভুল ভাবে ফিল আপ করে Next-বাটনে ক্লিক করতে হবে।

জিমেইল-একাউন্ট-খুলবো

তার আগে আপনি যদি মোবাইল নাম্বার দিয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই সেটা ভেরিফাই করে নিবেন।

নিউ-জিমেইল-অ্যাকাউন্ট

ভেরিফাই করার জন্য আপনার সিম কার্ডে একটি মেসেজ যাবে যেখানে কয়েক ডিজিটের একটি পিনকোড দেওয়া হবে।

এবং সেই পিনকোড দিয়ে একাউন্ট ভেরিফাই করে নিবেন। মোবাইল নাম্বার দিলে আপনার একাউন্ট হ্যাক হওয়ার থেকে অনেকটাই নিরাপদে থাকবে।

ইমেইল-আইডি

এখন আপনার সামনে গুগল কিছু গোপনীয়তা এবং শর্তাদি শো করবে যেগুলো আপনার মেনে চলতে হবে।

এটা আপনি চাইলে সম্পূর্ণ পড়ে নিতে পারেন অথবা I Agree-বাটনে ক্লিক করে সামনে এগিয়ে যেতে পারেন। এখন খুব সহজেই আপনার একটি জিমেইল একাউন্ট তৈরী হয়ে গেলো।

ইয়াহু একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনার কাছে যদি ইয়াহু সফটওয়্যার থেকে তাহলে খুব সহজেই ইয়াহু মেইল একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।

তার আগে আপনার জেনে নেওয়া উচিৎ ইয়াহু আসলে কি? ইয়াহু হচ্ছে একটি কোম্পানি যার বিভিন্ন ধরণের পণ্য রয়েছে যেমনঃ ইয়াহু সার্চ ইঞ্জিন, ইয়াহু মেইল, ইয়াহু ওয়েবসাইট, ইয়াহু নিউজ ইত্যাদি।

আমি মূলত ব্রাউজারের মাধ্যমে ইয়াহু একাউন্ট খোলার নিয়ম দেখব। চাইলে আপনি কোনো ব্রাউজারে প্রবেশ করতে পারেন অথবা ইয়াহু অ্যাপে প্রবেশ করতে পারেন প্রক্রিয়া একই।

ব্রাউজারে প্রবেশ করে ইয়াহুতে ভিজিট করবেন এবং ইয়াহু মেইল একাউন্ট খোলার জন্য Create An Account-এ ক্লিক করবেন।

এখন আপনার সামনে একটি ফর্ম আসবে যেটা নির্ভুল ভাবে ফিল আপ করে Continue-বাটনে ক্লিক করতে হবে।

এখন আপনার সামনে আপনার দেওয়া মোবাইল নাম্বারটি শো করবে চাইলে আপনি দেখে নিতে পারবেন আপনার দেওয়া নাম্বারটি সঠিক হয়েছে কি না।

আপনার দেওয়া নাম্বারটি যদি সঠিক হয়ে থাকে তাহলে Text Me A Verification Code-এখানে ক্লিক করবেন এবং আপনার সামনে একটি অপশন আসবে যেখানে আপনার মোবাইলে চলে যাওয়া পিনকোডটি দিয়ে Verify-তে ক্লিক করতে হবে।

এখন আপনাকে অভিনন্দন জানানু হবে এবং আপনি Continue-বাটনে ক্লিক করবেন। আরো একটি পেজ ওপেন হবে যেখানে ইয়াহু মেইল সম্পর্কে কিছু গোপনীয়তা দেওয়া থাকবে চাইলে পড়ে নিতে পারেন অথবা Ok-বাটনে ক্লিক করে আপনার ইয়াহু মেইল একাউন্টে প্রবেশ করতে পারেন।

এভাবে আপনি খুব সহজেই একটি ইয়াহু মেইল একাউন্ট তৈরি করতে পারেন।

হটমেইল খোলার নিয়ম

মাইক্রোসফট কোম্পানির অন্যতম একটি সেবা হচ্ছে আউটলুক ডটকম। এটা একটি ওয়েবমেইল সার্ভিস।

আপনি হটমেইল একাউন্ট তৈরী করতে গেলে মাইক্রোসফটের পণ্য আউটলুক ডটকমে প্রবেশ করতে হবে।

আউটলুক এবং হটমেইল একই কাজ করে। কারণ এ দুটি একই কোম্পানির পণ্য।

হটমেইল একাউন্ট তৈরী করার জন্য মোবাইলে প্লে স্টোর থেকে আউটলুক অ্যাপস ডাউনলোড করে নিতে পারেন অথবা যেকোনো ব্রাউজারের সহায়তা নিতে পারেন একাউন্ট খোলার জন্য। আমি ব্রাউজার দিয়ে হটমেইল খোলার নিয়ম দেখাব।

যেকোনো একটি ব্রাউজারে প্রবেশ করে Outlook.Com-এ ভিজিট করুন। হটমেইল একাউন্ট খোলার জন্য Create Free Account-এ ক্লিক করুন।

এখন আপনার সামনে একটি নতুন পেজ ওপেন হবে এবং সেখানে নতুন একাউন্ট খোলার জন্য ই-মেইলের নাম দিতে বলবে। কিন্তু আপনি ডান দিকে দেখতে পারবেন @outlook.com।

এখন আপনি চাইলে @outlook.com-দিয়ে খুলতে পারেন অথবা সেটায় ক্লিক করলে @hotmail.com-দেখতে পারবেন।

সুতরাং আপনি যেকোনো একটি সিলেক্ট করে ই-মেইলের নাম দিয়ে Next-বাটনে ক্লিক করতে হবে।

ইমেইল-আইডি-খোলার-নিয়ম

আপনার সামনে একটি নতুন অপশন আসবে যেখানে পাসওয়ার্ড দিয়ে আবার Next-বাটনে ক্লিক করতে হবে।

হটমেইল-একাউন্ট-তৈরী

এরপর আপনার নাম দিয়ে Next-অপশনে ক্লিক করতে হবে।

ই-মেইল-খোলার-পদ্ধতি

এখন একটি ফর্ম আসবে এবং সেটা ফিল আপ করতে হবে ও Next-এ ক্লিক করতে হবে।

হটমেইল-খোলার-নিয়ম

এখন আপনার সামনে একটি ক্যাপচা শো করবে যেখানে আঁকাবাঁকা কিছু ওয়ার্ড দেওয়া থাকবে। এটা মূলত দেওয়া হয় নিরাপত্তার জন্য আপনি মানুষ নাকি রোবট যাচাই করার জন্য।

আউটলুক-মেইল

ক্যাপচাটি সঠিক ভাবে দেওয়ার পর Next-বাটনে ক্লিক করলে আপনার হটমেইল একাউন্ট তৈরী হয়ে যাবে।

সর্বশেষ,

আপনি খুব সহজেই জিমেইল, ইয়াহু মেইল, হটমেইল ও আউটলুক একাউন্ট তৈরী করতে পারবেন। আপনি যদি আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ে থাকেন তাহলে হয়তো ই-মেইল খোলার নিয়ম শিখেছেন। আর্টিকেলটি পড়ে যদি ভালো লাগে তাহলে কমেন্ট ও শেয়ার করবেন।

Leave a Comment